Note: Now you can download articles as PDF format
বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য 9564866684 এই নাম্বারে যোগাযোগ করুন
  • Travel

হিমালয়ের রাজকন্যা

  • হোমাগ্নি ঘোষ
  • May 10, 2020
  • 353 বার পড়া হয়েছে

Sorry! PDF is not available for this article!


কালপোখরির প্রিন্সেস দোলমা
 
বেশ গাঢ় হয়ে এসেছিলো ঘুম টা, কাল রাতে এত জোরে হাওয়া বইছিলো যে মনে হচ্ছিলো ট্রেকার্স হাট টা উড়ে চলে যাবে, শেষ রাতে দুটো কম্বলের তলায় বেশ আরামের দেশে চলে গেছিলাম হঠাৎ একি জ্বালা !!!
ঘাড়ের কাছে প্রচন্ড শীতল একটা স্পর্শ, চমকে উঠলাম এক ঝটকায় ঘুমটা ভেঙে গেল, চোখটা খুলবার আগেই বিদ্যুৎ গতিতে একটা কিছু এসে মুখে লাগলো, একরাশ সাদা মিহি বরফের তুলোর মতন বল, কিছু বোঝার আগেই শুনি একটা বাচ্চা মেয়ের খিলখিল হাসি। মাথায় টুপি পড়া, সবুজ জ্যাকেট পরা একটা ৭/৮ বছরের নেপালি মেয়ে আমার দিকে তাকিয়ে মুখ ভেংচাচ্ছে..... দোলমার সাথে সেটাই ছিল আমার প্রথম আলাপ কালপোখরির  এক শীতের ভোরে।
 
কালপোখরির ট্রেকার্স হাটের নিলম শেরপার মেয়ে দোলমা, সে মানেভঞ্জনের ওখানে স্কুলে পড়ে কিন্তু ছুটিতে সে এখানেই তার মার কাছে চলে এসে আর বেজায় দুস্টুমি করে.... সকালে ব্রেকফাস্ট নিয়ে বসেছি ঝাল ঝাল ম্যাগী, হঠাৎ পিছন দিক থেকে একটা খোঁচা দেখি দোলমা এসে দাঁড়িয়েছে আমার সামনে।
 
 
আপ ক্যাপ্টন হো? দোলমা বেশ গম্ভীর স্বরে প্রশ্ন করে.. আমার বেশ হাসি পায়, প্রশ্ন করি কিউ?? 
দোলমা বলে -আগার আপ ক্যাপ্টেন হোগা তো মে আপসে দোস্তি করুঙ্গা ওর আপকো মেরে এক চকলেটে দেনা পরেঙ্গে,ইয়ে দেখো... 
বলে দোলমা ওর টুপিটা খুললো, দেখি ওর ভিতরে রাশি রাশি লজেন্স আর চকলেটে। আমি বললাম আজ তুমি মেরে ক্যাপটেন।
 
কালপোখরির চারপাশে বেশ বরফ জমে আছে, ডিসেম্বরের শেষ, কলকাতায় এখন সবাই বড়দিনের ছুটিতে মেতে আছে.. আমি দোলমার হাত ধরে চলেছি পাহাড়ের উঁচু চূড়ায় দোলমা বলেছে ওখানে নাকি রঙীন বরফ পাওয়া যাবে... অগত্যা যেতেই হবে হিমালয়ের রাজকন্যার কথা তো অমান্য করা যায়না।
 
পাহাড়ের উপরে পৌঁছে দেখি পাশের ঢালে প্রচুর বরফ পড়েছে কাল রাতে, সেই বরফের সমুদ্রে দোলমা নিজের স্টাইলে আমাকে স্কেটিং শেখাতে শুরু করলো আমি তো তিন চারবার আছাড় খেলাম আর প্রতিবার দোলমা হাততালি দিচ্ছিলো আর বরফের বল আমার দিকে ছুড়ে দিচ্ছিলো.. নির্জন পাহাড়ের বুকে বরফের দেশের রাজকন্যা দোলমা, আমি অবাক হয়ে পাহাড়ের সেই ফুটফুটে পরী কে দেখছিলাম।
 
 
সেদিন সারাসন্ধ্যা দোলমা আমাকে ওর স্কুলের গল্প বলেছে, ওর প্রিয় চিপসের কথা বলেছে, ও চুষে চুষে বরফ খেতে ভালোবাসে বলেছে, ও অনেক ড্যান্স স্টেপ পারে দুটো আমাকে দেখিয়েছিলো, ও আন্ডা কারী খেতে ভালোবাসে বলেছে আর আমার সাথে কুটমুট গেম খেলেছিল (দোলমার নিজের মাথা থেকে আবিষ্কৃত খেলা )।
 
পরেরদিন যখন সান্দাকফু যাবার জন্যে তৈরী হচ্ছি তখন পাহাড়কন্যার মন খারাপ, ক্যামেরার সামনে লাজুক দোলমা কিছুতেই ছবি তুলতে রাজী নয় যখন বলেছি আবার আসব তখন হাসিমুখে জড়িয়ে ধরে ছবি তুলেছিল আমার হিমালয়ের প্রিন্সেস।
 সান্দাকফু যাবার পথে অনেকটা পথ আমাদের সাথে এসেছিলো দোলমা শেষে বিদায় দেবার সময় আমার কাছে এসে মুঠো পুচকি হাত আমার দিকে এগিয়ে দিল দোলমা বললো -ক্যাপ্টেন ইয়ে তুমহারে লিয়ে... হাতে গুঁজে দিল একটা চকলেট।
 
আমার চোখে দোলমা  হিমালয়ের ফুলের মতন নিষ্পাপ পরি হয়ে থেকে যাবে আজীবন।

পরিচিতি:

লেখক হোমাগ্নি ঘোষ প্রেসিডেন্সি কলেজের ছাত্র, পেশায় শিক্ষক এবং প্রকৃতিবিদ, কলকাতা বইমেলা ২০২০ এ তার ভ্রমণের উপর বই প্রকাশ পেয়েছে "কমরেড যখন হিমালয়" প্রচুর ট্রেকিং, এক্সপেডিশন করেন। বেশিরভাগ সময় তার ঠিকানা পাহাড় ও জঙ্গল।
শেয়ার করুনঃ