Note: Now you can download articles as PDF format
বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য 9564866684 এই নাম্বারে যোগাযোগ করুন
  • Travel

নুব্রা থেকে প্যাংগং সো

  • হোমাগ্নি ঘোষ
  • April 15, 2020
  • 582 বার পড়া হয়েছে
Download PDF

May your dreams be larger than mountains and may you have the courage to scale their summits.

খয়েরি পাহাড়ের বুক চিরে ধুলো উড়িয়ে ছুটে চলেছে গাড়িটা, দূরে দেখা যাচ্ছে বরফ পাহাড়ের সারি, শরতের আকাশের মত তুলো তুলো মেঘ ভেসে বেড়াচ্ছে ধূসর পাহাড়ের উপরে, তার ছায়া পড়েছে রুক্ষ শীতল মরুভূমির পাদদেশে। নুব্রা উপত্যকা থেকে আমাদের গাড়ি ছুটে চলেছে লাদাখের অন্যতম শ্রেষ্ঠ হ্রদ প্যাংগংয়ের উদ্দেশ্যে। উঁচুনিচু রুক্ষ শীতল মরুভূমির রাস্তা বেয়ে গাড়ি দৌড়াচ্ছে পাশ দিয়ে সবুজ নীল মেশানো সিয়াক নদীও আমাদের পথ চলার সাথী। আঁকাবাঁকা পথে উঠতে উঠতে ড্রাইভার পাহাড়ের ঢালে জানালো এখানে শাহরুখ ক্যাটরিনার "Jab Tak Hai Jan" ছবির কিছু স্টান্সের শুটিং হয়েছে ঠিক প্যাংগংয়ের ৩০ কিমি আগে। রুক্ষ রাস্তায় গাছপালা নেই, ঝলমল রোদে আশপাশের রংবেরঙের পাহাড়গুলোর রূপ আরো ধারালো হয়েছে।

রাস্তায় দেখা হল দুজন সাইকেল আরোহীর সাথে, লেহ থেকে সাইকেল নিয়ে তারা ছুটছে প্যাংগং দর্শনে, ব্রিটেন থেকে আগত সেই দুই বন্ধু এককথায় স্বীকার করলো পৃথিবীর এত দেশে তারা সাইকেল নিয়ে ভ্রমণ করেছে কিন্তু লাদাখি চ্যালেঞ্জ ব্যাপারটা আলাদা বস্। গাড়ি আবার পথ চলা শুরু করলো এলোমেলো পাহাড়ের পাকদন্ডী বেয়ে আরো কিছুটা চলার পর দেখলাম দূরে গাঢ় খয়েরি বেগুনি পাহাড়ের বুকে ছোট প্রস্ফুটিত একটা নীল পদ্ম প্যাংগং, তিব্বতী ভাষায় সো কথার মানে হ্রদ বা সরোবর অনেকে তাই বলে Pangong Tso, প্যাংগং লেহ থেকে প্রায় ১৫২ কিমি দূরে ১৪৩৪৫ ফুট উচ্চতায় একটা অপূর্ব সুন্দর নোনা হ্রদ, বলা হয় প্রায় ১৩৫ কিমি দীর্ঘ এবং থেকে  কিমি প্রস্থ বিশিষ্ট এই তিনভাগের দুভাগ তিব্বতে, মাত্র ৪৫ কিমি ভারতের দখলে।

লেহ থেকে প্যাংগং আসতে হলে পেরোতে হবে পৃথিবীর তৃতীয় উচ্চতম মোটরপথ চাংলা পাস(১৭৩৫০ ফুট), এই চাংলা পাস আমরা প্যাংগং থেকে লেহ শহর ফেরার পথে পার করেছিলাম সেখান থেকে উত্তর-পশ্চিমের আদি অনন্ত লাদাখের বিস্তীর্ণ পর্বতমালা এবং স্টক কাংরির অবাধে দর্শন পাওয়া যায়। ঘন গেরুয়া রং এর পাহাড়ের সারি, নীল আকাশে পেজা তুলোর মত ডুমো ডুমো সাদা মেঘের দল, তার মাঝে সূর্যের আলোর তীব্রতার সাথে প্যাংগং মুহু মুহু নীল থেকে ঘন নীল, পান্না সবুজ, স্বচ্ছ আকাশী নীল, সমুদ্র নীল, তুতে নীল বিভিন্ন রঙের খেলায় মাতলো।  প্যাংগং হ্রদের সৌন্দর্য্য ছবিতে পুরোপুরি বোঝানো যাবেনা, প্রতিটা কোন প্রতিবারের দূরত্ব থেকে এই সরোবর তার রং এর খেলা দেখিয়ে চোখ ধাঁধিয়ে দেবে। স্বচ্ছ হ্রদের জলে নিচের নুড়িপাথর গুলো একদম স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে হ্রদের সামনেই বিখ্যাত ছবি থ্রী ইডিয়েটস্ এর যে দৃশ্যটা ক্যামেরাবন্দি হয়েছিল সেই স্থানটাও চিহ্নিত করা আছে।

এই মায়াবী রূপসী সরোবরের রং এর খেলা দেখতে দেখতে কখন যে চলে গেল কয়েক ঘন্টা খেয়াল করিনি, এইবার ফেরার পালা তাই সাত-তাড়াতাড়ি প্যাংগংয়ের জল নিয়ে মাথায় দিলাম প্রতিবারের মতো এবারও হিমালয়ের আশীর্বাদ থেকে নিজেকে বঞ্চিত করলাম না, একটা কথা আপনাকে মানতেই হবে In the end, it not the years in your life that count. It is the life in your years. Fill your life with experiences, not things. Have stories to tell, not stuff to show.

হোমাগ্নি ঘোষ (Homagni Ghosh)

পরিচিতি:

লেখক হোমাগ্নি ঘোষ প্রেসিডেন্সি কলেজের ছাত্র, পেশায় শিক্ষক এবং প্রকৃতিবিদ, কলকাতা বইমেলা ২০২০ এ তার ভ্রমণের উপর বই প্রকাশ পেয়েছে "কমরেড যখন হিমালয়" প্রচুর ট্রেকিং, এক্সপেডিশন করেন। বেশিরভাগ সময় তার ঠিকানা পাহাড় ও জঙ্গল।
শেয়ার করুনঃ